আন্তর্জাতিকজাতীয়জেলানাগরিক মতামত

ক‌রোনা সংক‌টের সময় গ্রামের তরুণ‌রা গ্রীষ্মকালিন সব‌জি চা‌ষে এ‌গি‌য়ে এ‌সে‌ছে

ক‌রোনা সংক‌টের সময় গ্রামের তরুণ‌রা গ্রীষ্মকালিন সব‌জি চা‌ষে এ‌গি‌য়ে এ‌সে‌ছে

প্রতিবেদক: মোঃ সোলাইমান হো‌সেন

চাঁদপুর জেলার মতলব উত্তর উপ‌জেলার চাঁন্দ্রাকা‌ন্দি গ্রা‌মের এক‌টি নিঃস্বার্থ, মান‌বিক ও সামা‌জিক সংগঠন হ‌চ্ছে “গ্রীণ ক্লাব চাঁন্দ্রাকা‌ন্দি”।

ক্লাব‌টি প্র‌তি‌ষ্ঠিত হয় ২০০৯ সা‌লে গ্রামের একজন আদর্শ মান‌ু‌ষের হাত ধ‌রেই, তি‌নি ছি‌লেন মরহুম ই‌ঞ্জি‌নিয়ার মোহাম্মদ আব্দুল ম‌তিন। প্র‌তিষ্ঠাকাল থে‌কেই গ্রামের তরুণরা এক‌ত্রিত হ‌য়ে নানা ধর‌ণের সামা‌জিক কাজ করে চল‌ছে।

তার মৃত্যুর পরেও ক্লাবের কার্যক্রম থে‌মে যায়‌নি, তা অ‌বিরত চল‌ছে। বর্তমা‌নে ক্লা‌বের সভাপ‌তি কিংবা অ‌ভিভাবক চাঁন্দ্রাকা‌ন্দি গ্রামের কৃ‌তি সন্তান ও দি স্ট্রাকচারাল ই‌ঞ্জি‌নিয়ার্স লি‌মি‌ডেট এর চেয়ার‌ম্যান ই‌ঞ্জি‌নিয়ার মোহাম্মদ আব্দুল আউয়াল, সহ-সভাপ‌তি জনাব মোঃ রা‌সেল মুন্সী, সাধারণ সম্পাদক জনাব মোঃ ক‌বির হো‌সেন ও সাংগঠ‌নিক সম্পাদক জনাব মোঃ নজরুল ইসলাম টিটু।

ওনা‌দের স‌ঠিক দিক নি‌র্দেশনায় তরুণরা সামা‌জিক কা‌জে সর্বদা নি‌জে‌কে বি‌লি‌য়ে দি‌চ্ছে।

বর্তমা‌নে সারা পৃ‌থিবী‌তে ক‌রোনা ভাই‌রা‌সের কার‌ণে এক আতংক সৃ‌ষ্টি হ‌য়ে‌ছে। এর প্রভাব বাংলা‌দে‌শেও মারাত্মকভা‌বে প‌রে‌ছে, ফ‌লে সারা‌দেশ লকডাউন অবস্থায় আ‌ছে। প‌রিবা‌রের মানুষগু‌লো হোম কোয়া‌রেন্টাই‌নে আ‌ছে। সকল অ‌ফিস, কল-কারখানা ও‌ শিক্ষা প্র‌তিষ্ঠানগু‌লো বন্ধ ঘোষণা করা হ‌য়ে‌ছে। নিম্ন শ্রে‌ণির মানুষ‌দের সকল প্রকার আ‌য়ের উৎস বন্ধ হ‌য়ে গে‌ছে। এভা‌বে আর কিছু‌দিন চল‌লে হয়ত দেখা দি‌বে বিরাট খাদ্য সংক‌টের যা আমা‌দের চিন্তারও বা‌হি‌রে। তাই তরুণরা যু‌গের সা‌থে তাল মি‌লি‌য়ে এমন ক্রা‌ন্তিকা‌লে নি‌জের প‌রিবার, গ্রাম ও দে‌শের স্বা‌র্থে নিরাপত্তা বজায় রে‌খে এ‌গি‌য়ে এ‌সে‌ছে গ্রীষ্মকা‌লিন সব‌জি চা‌ষে।

গ্রীণ ক্লাব চাঁন্দ্রাকা‌ন্দির উ‌দ্যো‌গেই এ‌গি‌য়ে এস‌ছে গ্রা‌মের তরুণরা। তরুণ‌দের ম‌ধ্যে বেশ ক‌য়েক‌টি টিম গঠন ক‌রে আলাদা আলাদা জ‌মি বু‌ঝি‌য়ে দেন ক্লাবের সি‌নিয়র ব্য‌ক্তিবর্গ। এবং ফসল উৎপাদ‌নে আ‌র্থিক যে অর্থ ব্যয় করা হ‌বে তা ক্লা‌বের ফান্ড থে‌কেই বহন করা হবে ব‌লে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

এবং ক্লা‌বের সকল সদস্য ম‌নে ক‌রেন এ সংক‌টের সম‌য়ে যারা অবসর আ‌ছেন প্র‌ত্যে‌কের নিজে‌কে কা‌জে লাগানো উ‌চিৎ নিজ জায়গা থে‌কেই।

এখনই সময় কিছু করবার, যুগ‌প‌যো‌গী সিদ্ধান্ত নেয়ার।

তাই উক্ত ক্লা‌বের সাধারণ সম্পাদক মোঃ‌ কবির হো‌সেন ও সাংগঠ‌নিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম টি‌টু সবার উ‌দ্দে‌শ্যে ব‌লেন-

“গ্রীষ্মকা‌লিন সব‌জি চা‌ষে ম‌ন‌যো‌গি হোন সবাই। আ‌মিষ কিংবা মাছ চাষও কর‌তে পা‌রেন।

এ‌তে নি‌জের প‌রিবা‌রের চা‌হিদা মিট‌বে, পাশাপাশি নি‌জের আ‌র্থিক চা‌হিদাও মিট‌বে। সেই সা‌থে এ বিরূপ প‌রি‌বে‌শে খা‌দ্যের অভা‌বে থাকা মানু‌ষের পা‌শে দাঁড়া‌তে পার‌বেন। আর এটাই হ‌বে সত্যিকা‌রের মনুষ্য‌ত্বের প‌রিচয়, নিজে‌কে মানুষ হি‌সে‌বে দেখ‌তে চাই‌লে মনুষ্য‌ত্বের প‌রিচয় দিন। নাহ‌লে বেঁচে থে‌কেও হয়ত বি‌বে‌কের কা‌ছে মর‌বেন প্র‌তি‌নিয়ত।

সব‌জি বা তরিতরকারি যেমন‌ পুঁই শাক, ডাটা, লাউ, কুমড়ো, চিচিঙ্গা, পালং শাক, ডেঁরশ ইত্যাদির চাষ‌ করুন এবং পাড়া প্রতিবেশী সবাইকে তা করতে উদ্বুদ্ধ করুন।

সব‌জি চা‌ষে জায়গা হ‌তে পা‌রে সূ‌র্যের রোদ পরে আপনার বসতবা‌ড়ির চা‌রিপাশ, ফসলহীন প‌রে থাকা আবা‌দি জ‌মি, রাস্তার পাশ, পুকু‌রের পাড়, নদীর পাড় এবং যেখা‌নে ফসল ফলা‌নো সম্ভব সেখা‌নেই।

তারা আরো বলেন, যারাই এ কাজে এগিয়ে আসবেন তারা যেনো প্রত্যেকে নিজ নিরাপত্তা বজায় রাখে।”
এবং গ্রা‌মের সকল স‌দস্য‌দের প্র‌তি কৃতজ্ঞতা জানায় তারা এ মহৎ কাজ শুরু করার জন্য। এবং তারা গ্রা‌মের তরুণ‌দের উৎসাহ প্রদান ক‌রেন এবং বলেন- যে কো‌নো ভা‌লো কা‌জে সর্বদা তারা পা‌শে থা‌কবে।

এমন সম‌য়ে প্র‌ত্যে‌কের উচিৎ হোম কোয়া‌রেন্টাইন সময়টা‌কে একটা ভা‌লো কা‌জে নি‌জে‌দের নিরাপত্তা অবলম্বন ক‌রেই ব্যয় করা। সেটা স্বাভা‌বিকভা‌বেই হ‌তে পা‌রে গ্রীষ্মকা‌লিন সব‌জি চাষ। কারণ খাদ্যাভা‌বে যেনো মানুষ ক‌ষ্টে না থাকে। সবার স‌ম্মি‌লিত চেষ্টাতেই সুন্দর একটা জা‌তি উপহার দেয়া সম্ভব।

সবাই নিরাপত্তা অবলম্বন করুন, সামা‌জিক দূরত্ব বজায় রাখুন, প্র‌য়োজন ছাড়া ঘ‌রেই থাকুন ও সুস্থ্য থাকুন।

Comment here